জিএসটি ক্ষতি পূরণ বাবদ ঘাটতি মেটাতে উপুর্যপরী ঋণ সহায়তা হিসাবে নগদ কিস্তিতে রাজ্যগুলিকে ৬ হাজার কোটি টাকা মঞ্জুর

জিএসটি ক্ষতি পূরণ বাবদ ঘাটতি মেটাতে উপুর্যপরী ঋণ সহায়তা হিসাবে নগদ কিস্তিতে রাজ্যগুলিকে ৬ হাজার কোটি টাকা মঞ্জুর

 জিএসটি ক্ষতি পূরণ বাবদ ঘাটতি মেটাতে অর্থ মন্ত্রক নবম সাপ্তাহিক কিস্তিতে রাজ্যগুলিকে ৬ হাজার কোটি টাকা মঞ্জুর করেছে। এর মধ্যে ৫ হাজার ৫১৬ কোটি ৭ লক্ষ টাকা মঞ্জুর করা হয়েছে ২৩টি রাজ্যকে এবং বাকি ৪৮৩ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা মঞ্জুর করা হয়েছে ৩টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে যেখানে বিধানসভা রয়েছে। এই ৩টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হ’ল – দিল্লি, জম্মু ও কাশ্মীর এবং পন্ডিচেরী। ২৩টি রাজ্য ও এই ৩টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জিএসটি পরিষদের সদস্য। বাকি ৫টি রাজ্য – অরুণাচল প্রদেশ, মণিপুর, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড এবং সিকিমে জিএসটি রূপায়ণ বাবদ রাজস্ব খাতে কোনও ঘাটতি নেই। জিএসটি রূপায়ণ বাবদ রাজস্ব খাতে ১ লক্ষ ১০ হাজার কোটি টাকার ঘাটতি মেটাতে কেন্দ্রীয় সরকার গত অক্টোবর মাসে ঋণ সুবিধা গ্রহণের জন্য একটি বিশেষ ব্যবস্থা চালু করে। এই ঋণ সহায়তা ব্যবস্থার মাধ্যমে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলি কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে ঋণ গ্রহণে সুবিধা পাচ্ছে। ইতিমধ্যেই ৯টি পর্যায়ে ঋণ সহায়তা মঞ্জুর করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত গত ২৩শে অক্টোবর, দোসরা নভেম্বর, ৯ই নভেম্বর, ২৩শে নভেম্বর, পয়লা ডিসেম্বর, ৭ই ডিসেম্বর, ১৪ই ডিসেম্বর, ২১শে ডিসেম্বর এবং ২৮শে ডিসেম্বর ঋণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। নবম কিস্তিতে এই সপ্তাহে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে ৫.১৫০৮ শতাংশ সুবিধা হারে ঋণ সহায়তা মঞ্জুর করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার এখনও পর্যন্ত বিশেষ এই ঋণ সহায়তার অঙ্গ হিসাবে ৪.৭৪৮৮ শতাংশ সুদের হারে মোট ৫৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে। জিএসটি রূপায়ণ বাবদ রাজস্ব খাতে ঘাটতি মেটাতে বিশেষ ঋণ সহায়তা ব্যবস্থার মাধ্যমে তহবিল সংস্থানের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকার যে সমস্ত রাজ্য জিএসটি ক্ষতি পূরণ মেটানো বাবদ প্রথম বিকল্প গ্রহণ করেছে, সেই রাজ্যগুলিকে মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ০.৫০ শতাংশের সমতুল অতিরিক্ত ঋণ সংগ্রহে অনুমতি দিয়েছে। অতিরিক্ত আর্থিক সম্পদের যোগান দিতে রাজ্যগুলিকে কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্য গড় অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ০.৫০ শতাংশের সমতুল ঋণ সংগ্রহের অনুমতি দিয়েছে। সমস্ত রাজ্যই জিএসটি রূপায়ণ বাবদ রাজস্ব ঘাটতি মেটাতে প্রথম বিকল্প পন্থা গ্রহণ করেছে। এর ফলে, রাজ্যগুলির গড় অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ০.৫০ শতাংশের সমতুল হিসাবে অতিরিক্ত ১ লক্ষ ৬ হাজার ৮৩০ কোটি টাকা ঋণ সংগ্রহে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ২৮টি রাজ্য ও ৩টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল অতিরিক্ত ঋণ সংগ্রহের অনুমতি পেয়েছে। পশ্চিমবঙ্গকে রাজ্যস্তরীয় গড় অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ০.৫০ শতাংশের সমতুল হিসাবে ২৮শে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬ হাজার ৭৮৭ কোটি টাকা ঋণ সংগ্রহে অনুমতি দেওয়া হয়েছে এবং জিএসটি ক্ষতি পূরণ বাবদ রাজস্ব ঘাটতি মেটাতে বিশেষ ঋণ সংগ্রহ ব্যবস্থার মাধ্যমে তহবিল সংস্থানের জন্য ১ হাজার ২১৭ কোটি ১৪ লক্ষ টাকা ঋণ সংগ্রহে অনুমতি পেয়েছে।

News Desk

News Desk

প্রাসঙ্গিক বিষয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *