বাড়তি বেতন

 নতুন বছরেই পকেটে বাড়তি বেতন। রাজ্য সরকারের নতুন বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী পয়লা জানুয়ারি থেকে ৩% হারে মিলবে মহার্ঘ ভাতা।সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশির হাওয়া সরকারি কর্মচারী মহলে।
গত কয়েকদিন আগে নবান্নে মহার্ঘ ভাতার ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দীর্ঘদিন ধরেই মহার্ঘ ভাতা নিয়ে ক্ষোভ রয়েছে সরকারি কর্মীদের মধ্যে। তা ভোট বাক্সে পড়তে পারে। আর সেই কারণেই বিধানসভা ভোটের আগে ডিএ দেওয়া হল সরকারি কর্মীদের। ২০২১-এর জানুয়ারিতে ৩ শতাংশ ডিএ দেওয়া হবে বলে গত ৩ ডিসেম্বর জানান তিনি। তৃণমূলের নেতৃত্বাধীন কর্মচারী সংগঠন ফেডারেশনের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই বৈঠকেই তিনি এই ডিএ ঘোষণা করেন। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, সরকারি কর্মীদের ৩ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা দিতে অতিরিক্ত খরচ হবে ২২০০ কোটি টাকা। কিন্তু সবদিক বিচার করে ৩ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়।
ইতিমধ্যে ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করা হয়েছে। কিন্তু সে ঘোষণাও ছিল ডিএ-হীন। তাই বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী ৩ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করায় বৈঠকে উপস্থিত ফেডারেশন নেতারা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। যদিও কর্মচারী সংগঠন কোঅর্ডিনেশন কমিটি সরকারের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে।
সংগঠনের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক বিজয়শঙ্কর সিং আগেই জানিয়েছিলেন যে, ‘‘২০১১ সালের পর থেকেই আমরা কেন্দ্রীয় হারে ডিএ পাই না। বছরে একটা করে ডিএ ঘোষণা হয়। ফলে প্রতি বছর বকেয়া ডিএ-র পরিমাণ বাড়তে থাকে। ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর হওয়ার পরেও সে বৈষম্য কাটেনি। এই মুহূর্তে অন্তত ২১ শতাংশ ডিএ বকেয়া। জানুয়ারিতে গিয়ে যেটা ২৪ শতাংশে পৌঁছবে। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করছেন মাত্র ৩ শতাংশ। এ ভাবে ভিক্ষের দানে চলতে পারে না।’’
বিজয়শঙ্করের কথায়, ‘‘কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীরা তো বটেই, অন্যান্য রাজ্য সরকারের কর্মীরাও নিয়ম অনুযায়ী ডিএ পাচ্ছেন। পাচ্ছেন না শুধু পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কর্মীরা। ফলে সরকারের এই সিদ্ধান্তে তাঁরা খুশি নন বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন।

News Desk

News Desk

প্রাসঙ্গিক বিষয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *