ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের নিয়ন্ত্রণ

ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের নিয়ন্ত্রণ
  ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের কাজ হয়ে থাকে। তাই এক্ষেত্রে উপভোক্তা অধিকার আইন ২০১৯, অর্থ আইন ২০২০, তথ্যপ্রযুক্তি আইন ২০০০, বিদেশী মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০০ এবং প্রতিযোগিতা আইন ২০০২এর নিয়মগুলি মেনে চলা হয়। বিভিন্ন অবাঞ্ছিত কাজ আটকানোর জন্য প্রতিযোগিতা আইনের নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থাপনাকে কাজে লাগানো হয়।  সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করা অন্যতম উদ্দেশ্য। প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগের সঙ্গে ই-কমার্স সংস্থাগুলি নিয়ন্ত্রণের জন্য ২০১৮ সালের একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি গুরুত্বপূর্ণ।  

  সরকার কনফেডারেশন অফ অল ইন্ডিয়া ট্রেডার্স (সিএআইটি)র ই-কমার্স সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে অভিযোগ গ্রহণ করেছে। বিদেশী মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন ১৯৯৯এর অনুসারে এ সংক্রান্ত তদন্তে এনফোর্সমেন্ট নির্দেশালয়কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সিএআইটি অভিযোগ করেছে ব্যাঙ্কগুলি একপেশে নীতির মাধ্যমে অ্যামাজন, ফ্লিপকার্টের মতো ই-কমার্স ওয়েবসাইটে ক্যাশব্যাক এবং ছাড়ের বিশেষ সুযোগ দিচ্ছে। এই সমস্ত অভিযোগগুলিকে কম্পিটিশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া তদন্ত করে দেখছে।

ফ্লিপকার্ড এবং আদিত্য বিড়লা ফ্যাশন ও রিটেইল-এর মধ্যে বাণিজ্যিক বোঝাপড়ায় প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগ ও বিদেশী মুদ্রা ব্যবস্থাপনা আইন মানা হয়নি এই সংক্রান্ত অভিযোগের কোন তদন্ত রিজার্ভ ব্যাঙ্ক বা এনফোর্সমেন্ট নির্দেশালয় শুরু করেনি।

রাজ্যসভায় এক প্রশ্নের লিখিত জবাবে এই তথ্য দিয়েছেন, শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী শ্রী সোম পরকাশ।
সূত্র: পি আই বি

News Desk

News Desk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *