রাজ্যের বাইরে যাওয়ার নিষেধাজ্ঞা ছত্রধরের

ভোটের মুখে তৎপর এনআইএ (National Investigation Agency)৷ পরবর্তী শুনানির আগ পর্যন্ত রাজ্যের বাইরে যেতে পারবে না ছত্রধর মাহাতো৷ পরবর্তী শুনানি ২৪ মার্চ৷ ছত্রধর-মামলায় অন্তর্বর্তী নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court)৷ তাতে বিপাকে ছত্রধর মাহাতো (Chhatradhar Mahato)। এনআইএ আদালতের অনুমতি ছাড়া ২৪ মার্চ পর্যন্ত রাজ্যের বাইরে যেতে পারবে না ছত্রধর মাহাতো৷ কয়েক মাস আগে ছত্রধর মাহাতোকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এনআইএ। শালবনির সিআরপিএফ ক্যাম্পে ছত্রধর মাহাতোকে প্রায় ৩ ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল এনআইএ ৷তার আগে তাকে হাজিরার জন্যে ২ বার নোটিস দিয়েছিল এনআইএ। কিন্তু করোনা আবহের যুক্তিতে কলকাতায় আসেননি ছত্রধর৷ তারপর শালবনিতেই ক্যাম্প করে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ৷ উল্লেখ্য,২০০৭ ও ২০০৯ সালের পুরনো দু’টি মামলায় নতুন করে তদন্ত শুরু করেছে এনআইএ। যদিও ছত্রধরের বিরুদ্ধে ওই দুটি মামলায় এনআইএ-কে তদন্ত চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট৷ মামলা দু’টি হল- লালগড়ের এক সিপিএম কর্মী প্রবীর মাহাতো খুন৷ অন্যটি হল জেলবন্দি ছত্রধরের মুক্তির দাবিতে বাঁশতলা স্টেশনে ভুবনেশ্বর-দিল্লি রাজধানী এক্সপ্রেস আটক। যদিও ছত্রধর দাবি করেছিল, ‘ওই দুটি মামলায় যে আমি জড়িত নই, তা ইতোমধ্যে প্রমাণ হয়ে গিয়েছে।’ ২০০৯ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর লালগড় থানার বীরকাঁড় জঙ্গল থেকে সিআইডি তাঁকে গ্রেফতার করেছিল। তাঁর বিরুদ্ধে পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম–সহ রাজ্যের বিভিন্ন থানায় তাঁর বিরুদ্ধে নাশকতা, রাষ্ট্রদ্রোহিতা, খুন, লুঠপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের হয়েছিল৷২০১৯ সালে কলকাতা হাইকোর্ট আবেদনের ভিত্তিতে তাঁর সাজা কমিয়ে ১০ বছর করা হয়। সেই সময় তাঁর কারাবন্দি থাকার মেয়াদ ১০ বছর পেরিয়ে যায়। শেষমেশ ঝাড়খণ্ডের একটি মামলায় ছত্রধর আটকে ছিলেন। পরে সেই মামলাতেও জামিন পান ছত্রধর। ছাড়া পাওয়ার পরই তৃণমূলের রাজ্য কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন ছত্রধর মাহাতো৷ তৃণমূলের ২১ জনের রাজ্য কমিটি ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেই রাজ্য কমিটিতে গুরুত্ব দেওয়া হয় জঙ্গলমহলকে।

News Desk

News Desk

প্রাসঙ্গিক বিষয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *